কেরালা মসজিদে আশ্রয় পেল ১৭ হিন্দু পরিবার

টিবিটি টিবিটি

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৫:২০ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৩, ২০১৮ | আপডেট: ৫:২০:অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৩, ২০১৮

বিপদের সময়ই নাকি চেনা যায় আসল বন্ধুকে। হ্যাঁ, বিপদের সময়ই আসল বন্ধুদের চিনেছেন কেরালার বন্যা দুর্গত ১৭ টি পরিবার।

জলের তোড়ে ঘরবাড়ি, ভিটেমাটি সব শেষ হয়ে গিয়েছে। হাতে টাকাকড়ি যা ছিল, তাও শেষ। এই অবস্থায় প্রাণ বাঁচানো দায় হয়ে গিয়েছিল ৭৭ জন কেরলবাসীর। তাদের অধিকাংশই আবার হিন্দু। সাহায্যার্থে এগিয়ে এলেন মুসলিম ভাইয়েরা। অন্য কোথাও নয়, তাদের আশ্রয় দেওয়া হল এলাকার সবচেয়ে বড় মসজিদে।

কেরালার আকামপড়মের জামা মসজিদেই বন্যার এই ভয়াবহ দিনগুলি কাটিয়েছেন ওই ১৭টি হিন্দু পরিবার। এসব পরিবারের মোট ৭৭ জন আশ্রয় নিয়েছিলেন মসজিদে। সেই দলে ছিলেন বৃদ্ধ, নারী ও শিশুরাও। হিন্দু ভাই-বোনেদের জন্য চাঁদা তুলে নিয়মিত খাবারের ব্যবস্থাও করতেন মুসলিমরাই।

স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান পি টি উসমান জানাচ্ছেন, ‘আমাদের গ্রামে মোট ২৬ টি পরিবার আশ্রয় চেয়েছিল। তার মধ্যে ১৭টি ছিল হিন্দু পরিবার। আমরা গত ৮ আগস্ট মসজিদে একটা ত্রাণ শিবির খুলি। ১৪ আগস্ট থেকে এই পরিবারগুলির দায়িত্ব পুরোপুরি ছিল আমাদের ওপরই।’

শুধু তাই নয়, সম্প্রীতির আরও একাধিক নজির দেখল বন্যাক্রান্ত কেরালা। মালাপ্পুরমে বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর দুটি হিন্দু মন্দির পরিষ্কার করেছেন মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা।

সম্প্রীতির বার্তা দিতে পিছিয়ে নেই হিন্দুরাও। বুধবার কুরবানির ইদে মুসলিমদের নামাজ পড়ার জন্য খুলে দেওয়া হয় ত্রিশূর জেলার একটি মন্দির। কেননা এলাকার একমাত্র মসজিদ এখনও জলের নিচে।