বাজপেয়ির পরিকল্পনায় পরমাণু সক্ষমতা এসেছিল ভারতে

টিবিটি টিবিটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯:১৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০১৮ | আপডেট: ৯:১৩:অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৬, ২০১৮

ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ি ভারতকে বিশ্বের বুকে পরমাণু অস্ত্রধারী দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন। এর ফলেই দক্ষিণ এশিয়ায় অস্ত্র প্রতিযোগিতা অনেকাংশে বেড়ে যায়।

বৃহস্পতিবার ৯৩ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন অটল বিহারি বাজপেয়ি। গত ১১ জুন থেকে নয়াদিল্লীর অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটউটস অব মেডিকেল সায়েন্স (এইমস) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

আকর্ষণীয় বক্তব্যের জন্য সুপরিচিত বাজপেয়ি তিনবার ভারতের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। প্রথমবার ১৯৯৬ সালের ১৬ মে থেকে ৩১ মে এবং এরপর ১৯৯৮ সালের মার্চ মাস থেকে ২০০৪ সালের মে মাসের মধ্যে পর পর দু’দফায় তিনি দেশটির প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

প্রতিবেশী পাকিস্তানের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তোলার উদ্যোগের জন্য, যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সম্পর্ক উন্নয়ন এবং ১৯৯৮ সালে ভারতের দ্বিতীয় পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষার জন্য বিশেষভাবে স্মরণীয় তিনি।

১৯৭৪ সালের প্রথম পরমাণু পরীক্ষার দুই দশক পর বাজপেয়ির আমলে দ্বিতীয় পরীক্ষাটি চালানো হয়।

বাজপেয়ির ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) নেতৃত্বাধীন জোট সরকার ক্ষমতায় আসার দুই মাস পরেই পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষা চালায়। ১৯৯৮ সালের ১১ মে রাজস্থানের পোখরানে তিনটি আন্ডারগ্রাউন্ড নিউক্লিয়ার ডিভাইস বিস্ফোরণ করানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন বাজপেয়ি। দুই দিন পর একই স্থানে আরও দুইটি পরীক্ষা চালানো হয়েছিলো। এর ফলে বিশ্বজুড়েই নিন্দার ঝড় উঠে।

যুক্তরাষ্ট্র ভারতের উপর অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপ করে, কয়েকটি ইউরোপিয়ান দেশ এবং জাপান সাহায্য পাঠানো বন্ধ করে দেয়। ভারতের পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষার দুই সপ্তাহ পর পাকিস্তানও পরমাণু পরীক্ষা চালায়।

ওয়াশিংটনের উড্রু উইলসন সেন্টারের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক জ্যেষ্ঠ সহযোগী মাইকেল কুগেলম্যান বলেন, ভারতের ইতিহাসে ১৯৯৮ সালের পরমাণু অস্ত্র পরীক্ষাটি ছিলো একটি সন্ধিক্ষণ। তা উঠতি শক্তি হিসেবে ভারতের আবির্ভাব জানান দেয়।


ad