ফাইনাল চলাকালে মাঠে ঢুকে পড়া সেই নারীর ১৫ দিনের কারাদণ্ড

টিবিটি টিবিটি

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ১১:০২ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০১৮ | আপডেট: ১১:০২:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০১৮

টিবিটি খেলাধুলাঃ বিশ্বকাপের ফাইনাল চলাকালে মাঠে ঢুকে পড়া সেই দুই দর্শকসহ চারজনকে ১৫ দিনের হাজতবাসের নির্দেশ দিয়েছেন রাশিয়ার আদালত। চারজনই একটি উগ্র সংগঠনের সদস্য।

রোববার (১৫ জুলাই) রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচে মুখোমুখি হয় ফ্রান্স-ক্রোয়েশিয়া। ম্যাচের ৫৪ মিনিটের সময় নিরাপত্তাকর্মীদের চোখ ফাঁকি দিয়ে ঢুকে পড়েন দুই নারী ও এক পুরুষ দর্শক।

এদের মধ্যে পুরুষ অনুপ্রবেশকারী ক্রোয়েট তারকা দেজান লভরেনের হাত ধরে টানাটানি শুরু করেন। লভরেন তার কাছ থেকে ছাড়া পেতে ধাক্কাও মারেন। আর পুলিশের পোশাক পরে অনুপ্রেবেশকারী নারী দর্শক হাত মেলান ফরাসি তারকা কিলিয়ান এমবাপ্পের সঙ্গে।

অনুপ্রবেশকারী দু’জনকে মাঠ থেকে বের করতে ম্যাচে সাময়িক বিরতি টানতে হয়। নিরাপত্তাকর্মীরা তাদের দু’জনকেই টেনে-হিঁচড়ে সরিয়ে নিয়ে যান। আর এক নারী অনুপ্রবেশকারীকে মাঠে প্রবেশ করার সঙ্গে সঙ্গে থামিয়ে দেওয়া হয়।

পরে জানা যায়, ওই নারী অনুপ্রবেশকারী ‘পুসি রাইওট’ নামে একটি উগ্র নারীবাদী সংগঠনের সদস্য। ওই সময় উপস্থিত সংগঠনটির আরও তিন সদস্যের বিরুদ্ধেও আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়। সেই অভিযোগ খতিয়ে দেখে তাদের ১৫ দিনের হাজতবাসের নির্দেশ দেন আদালত।

আদালতের আদেশ অনুযায়ী, আগামী তিন বছর কোনো ক্রীড়া আয়োজনে তারা দর্শক হিসেবে অংশ নিতে পারবেন না। তবে দণ্ডপ্রাপ্তরা দাবি করছেন, রাজনৈতিক বন্দীদের মুক্তি আর উন্মুক্ত রাজনীতি চর্চার পরিবেশ তৈরির জন্য এমন করেছেন তারা।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও আরও কয়েকজন বিশ্বনেতার উপস্থিতিতে এই ঘটনা ঘটান ওই চার পাঙ্ক ব্যান্ড সদস্য। এই চারজনের নাম ভেরোনিকা নিকুলশিনা, ওলগা পাখতুসোভা, ওলগা কুরাচাইয়োভা এবং একমাত্র পুরুষ সদস্য পিওতর ভেরজিলভ। এর আগে এই ব্যান্ড দলের মূল তিন সদস্যের বিরুদ্ধে ২০১২ সালে পুতিনের বিরুদ্ধে চার্চে বিক্ষোভ করার অপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছিল।