‘কোটা আন্দোলন নয়, ভিসির বাড়িতে হামলা করায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে’

প্রকাশিত: ৭:১৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০১৮ | আপডেট: ৭:১৭:অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০১৮
‘কোটা আন্দোলন নয়, ভিসির বাড়িতে হামলা করায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে’

সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা নিয়ে আন্দোলন করার কারণে কাউকে আটক করা হয়নি বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। বলেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলার ভিডিও ফুটেজে যাদেরকে দেখা গেছে তাদেরকেই আটক করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর আদর্শ মহিলা ডিগ্রি কলেজে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

কোটা সংস্কারের দাবিতে তুমুল আন্দোলনের মধ্যে গত ৮ এপ্রিল রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ভবনে হামলা হয়। অধ্যাপক আখতারুজ্জামান জানিয়েছেন বেপরোয়া এই হামলায় তাকেও হত্যার চেষ্টা হয়।

হামলাকারীরা ভবনের সিসি ক্যামেরা ও ফুটেজ সংগ্রহের যন্ত্রপাতিও সব খুলে নেয়। তবে আশেপাশের বিভিন্ন ভবন থেকে পাওয়া ফুটেজ থেকে পাওয়া ছবি মিলিয়ে পুলিশ পরে চার জনকে গ্রেপ্তার করে যাদের কেউ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র নন। এদের একজন ঢাকা আলিয়া মাদ্রাসায় পড়েন।

তবে সম্প্রতি কোটা আন্দোলনের নেতা রাশেদ খাঁনকে গ্রেপ্তারের পর উপাচার্যের বাড়িতে হামলা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। গ্রেপ্তার হয়েছেন আন্দোলনের আরেক নেতা ফারুক হাসান। ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি লাকি আক্তারের বাড়ি থেকে আরেক নেতা এবিএম সুহেলকে গোয়েন্দা পুলিশ আটক করেছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘কোটা আন্দোলনকারী কাউকে আটক করা হচ্ছে এটা সঠিক নয়। আপনারা জানেন আমাদের ছাত্রদের কাছে সব চেয়ে প্রিয় ব্যাক্তিত্ব ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির বাড়িতে কীভাবে হামলা হলো, লুটতরাজ হলো। সাংবাদিকদের ক্যামেরায় তা ধারণ হয়েছে এবং আমাদের সিসিটিভি ক্যামেরাতেও সেগুলো ফুটেজ পাওয়া গেছে।’

‘অনেকগুলো ভেঙে ফেলা হয়েছে। আশপাশের কিছু ক্যামেরা চালু ছিল সেগুলোর ফুটেজ পাওয়া গেছে। এই কাজে যারা সম্পক্ত ছিল তাদের কে ধরা হচ্ছে।’

‘আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি তাদের বিরুদ্ধে যারা ভাঙচুর, হামলা, অগ্নিসংযোগ কাজে নিয়জিত ছিল শুধু তাদের বিরুদ্ধে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি। আমরা সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে ভিডিও ফুটেজ দেখেই আটক করা হয়েছে।’

রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়েও কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। বলেন, ‘মিয়ানমার আমাদের আশ্বস্ত করেছিল তারা সব রোহিঙ্গাদের ফেরত নেবে। কিন্তু তারা কথা রাখেনি। রোহিঙ্গাদের পাঠানোর ব্যাপারে সব ধরনের প্রচেষ্টা আমাদের রয়েছে। আমরা সমাধান করতে পারব।’

মাদকবিরোধী অভিযান নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা কাউকে ছাড় দিচ্ছি না। সে বড় রাজনীতিবিদ হোক বা সমাজ প্রতি হোক। সবাই কে বিচারের কাঠগড়ায় দাড়াতে হবে। মাদকের যুদ্ধ আমরা চালিয়ে যাব।’

‘যারা মাদকের ব্যবসা করে বা সেবন করে তাদের তথ্য আমাদের দেন। আমরা তাদের আইনের কাঠগড়ায় তুলব।’