শ্বশুরবাড়ির লোকদের বিরুদ্ধে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

পারিবারিক কলহের জেরে এক কন্যা সন্তানের জননী সুমনা খাতুনকে (২৭) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে।

১৭ মে, বৃহস্পতিবার রাতে বেনাপোলের বাহাদুরপুর ইউনিয়নের বলিদাহ গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। সুমনার বাড়ি ঝিকরগাছা নিশ্চিন্তপুর গ্রামে। তিনি নিশ্চিন্তপুরের সহিদুল ইসলামের মেয়ে।

এদিকে সুমনার মামা শিক্ষক শওকত আলী ও বরকত আলী অভিযোগ করেছেন, হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ধামাচাপা দিতে জমি লিখে দেওয়াসহ ১০ লাখ টাকা দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছে সুমনার শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

পুলিশ জানায়, ৮ বছর আগে শার্শার বলিদাহ গ্রামের মোবারক হোসেনের ছেলে উজ্জলের সঙ্গে সুমনা খাতুনের বিয়ে হয়। তাদের ছয় বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। এরই মধ্যে বিভিন্ন সময়ে পারিবারিক কলহে সুমনার ওপর নির্যাতন করে আসছিল স্বামীসহ পরিবারের সদস্যরা।

সম্প্রতি নির্যাতনে গর্ভের একটি সন্তান নষ্ট করে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ সুমনার স্বজনদের। তারা জানান, বৃহস্পতিবার রাতেও তার ওপর চালানো হয় অমানবিক নির্যাতন। এক পর্যায়ে পিটিয়ে হত্যা করে তাকে ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

নিহতের মা সাহিদা খাতুনসহ স্বজনদের অভিযোগ, সুমনাকে নির্যাতন করে মেরে ফেলা হয়েছে।

শার্শা থানার ওসি মসিউর রহমান জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। সুরতহাল ও ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে। সুমনার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।


*

*

Top